ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন

ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন করার প্রক্রিয়া

অনলাইন ইনকাম ইউটিউব

আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে চান, তাহলে জেনে নিন কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন করাতে হয়।

 

একটা ইউটিউব চ্যানেলে যত ভালো কনটেন্ট বানায়ে রাখেন বা যত বেশী ভিউ/ভিজিটর থাকুক না কেন যদি সেই ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এর আওতাভুক্ত না থাকে তাহলে তা থেকে ইনকাম করা সম্ভব নয়।

ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশনঃ-

ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন চালু করতে গেলে একটা দীর্ঘমেয়াদী প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। যথাযথভাবে ইউটিউব কর্তৃপক্ষের দেওয়া নিয়ম নীতি গুলো অনুসরন করলে মনিটাইজেশন চালু করে ইউটিউব থেকে আয় করা খুব কঠিন কিছু নয়।

 

যারা নিজের তৈরি ইউটিউব চ্যানেলে গুগল এডসেন্স সার্ভিস চালু করে ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন করার কথা ভাবছেন পোষ্টটি তাদের জন্যে।
যথাযথভাবে চ্যানেল তৈরির কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর ইউটিউব কর্তৃপক্ষের দেওয়া শর্ত সমুহ পুরন করা সাপেক্ষে আপনার চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের অনুমতি পাবে।সেই বিজ্ঞাপন থেকে আয়কৃত টাকার লভ্যাংশ এড এজেন্সী কোম্পানী অর্থাৎ গুগগ এডসেন্স আপনাকে প্রদান করবে।

 

ইউটিউব চ্যানেল কিভাবে সাজাবেন জেনে নিন।
তারপর আপনার চ্যানেলের ভিডিও গুলোর ভিউয়ের সংখ্যা হিসাব করে আপনি টাকা পেতে থাকবেন।
তাই আমরা আজকের পোষ্টে ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন চালু করার প্রক্রিয়াটি নিতে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

 

ধরে নিলাম আপনি ইতিমধ্যেই ইউটিউব সম্পর্কে মোটামুটি ধারনা নিয়েই নিজের চ্যানেলের এডসেন্স এপ্রভালের অপেক্ষায় আছেন অথবা আপনি প্রথম ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন অন করার চেষ্টা করছেন।এখন আপনার চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচারের প্রক্রিয়া শুরুর জন্য কিছু প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে।

 

ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন চালু করার প্রক্রিয়াঃ

বিজ্ঞাপন প্রচার প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য আপনার ইউটিউব চ্যানেলের নূন্যতম ১০০০ সাবস্ক্রাইবার হতে হবে।
আপলোড করা ভিডিও গুলো নূন্যতম ৪০০০ ঘন্টা ভিউ থাকতে হবে।
উপরোক্ত শর্তাবলী পুরন করতে পারলে তবেই আপনার চ্যানেল মনিটাইজেশনের জন্য আবেদন করতে পারবেন।আপনার চ্যানেলের এডসেন্স এলিজিবিলিটি চেক করার জন্য গুগল সাইন ইন করা অবস্থায় এই লিংকে প্রবেশ করুন।
তবেই আপনার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।
আবেদনের প্রেক্ষিতে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ তা যথাসাধ্য যাচাই বাছাই করে উপযুক্ত মনে করলে আপনার চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচারের অনুমতি দিবে।আবেদন এপ্রুভ হলেই আপনার অনলাইন থেকে আয় এর প্রক্রিয়া শুরু হবে।
আপনার চ্যানেলে প্রদর্শিত ভিডিওর ভিউ এবং ক্লিক এর সংখ্যা হিসাব করে আপনার আয়ের টাকা এডসেন্স একাউন্টে জমা হতে থাকবে।
ইউটিউবে প্রদর্শিত ভিডিও এর প্রতি ভিউ এ কত টাকা আয় হতে পারে তা জেনে নিন।
এভাবে আপনার একাউন্টে ১০ ডলার জমা হলে পিন ভেরিফিকেশান প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।সর্বনিম্ন ১০০ ডলার জমা হলেই ব্যাংক ট্রান্সফার এর মাধ্যমে টাকা আপনার একাউন্টে জমা করে নিতে পারবেন।
বিজ্ঞাপন প্রচারের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো, একটা ভিডিও যদি জনপ্রিয় হয়, ভিউ বাড়ার সাথে সাথে সেখান থেকে বহুদিন যাবত আপনার আয় আসতেই থাকবে।
এজন্যেই সঠিক ভিডিও বানাতে পারলে এটাই হতে পারে যে কারো জন্য সবচেয়ে সহজ উপায়ে ইউটিউবে ইনকাম করার সেরা উপায়।
তবে মনে রাখতে হবে যে, মনিটাইজেশন চালু বা বিজ্ঞাপন প্রচার শুরু হলেই যে আপনার কাজ শেষ তা কিন্তু নয়।বরং এখান থেকেই আপনার আসল কাজ শুরু। অনলাইনে অনেক মানুষু যে বিষয় গুলো খোজ করে থাকে সেই বিষয় গুলো নিতে শিক্ষনীয় মানসম্মত ভিডিও বানাতে হবে। এখানে কিওয়ার্ড এবং সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন নিয়ে কাজ করতে হবে।

উপসংহার:-

মুল কথা আপনার ভিডিওর ভিউ যত বাড়বে, আপনার অনলাইন ইনকামের পরিমানটাও ততই বাড়বে।সুতরাং এই ক্ষেত্রে আপনার চ্যানেলের ভিজিটর/সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা বাড়ানোর দিকে মনোনিবেশ করতে হবে।তাহলেই আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এর পুর্ন সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *