প্রমোশনাল এসএমএস বন্ধ

মোবাইল ফোনের প্রমোশনাল এসএমএস বন্ধ করতে যা করতে হবে

টিপস এবং ট্রিকস
মোবাইল নেটওয়ার্ক কোম্পানী গুলোর বিরতীহীন বিরক্তিকর ম্যাসেজের জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন? এখনই একটি মাত্র এসএসএম দিয়ে চিরতরে প্রমোশনাল এসএমএস বন্ধ করে ফেলুন।

 

মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী মাত্র বিরক্তির সীমাটা অনুধাবন করতে পারেন।আর ইদানিং সময়ে তো মোবাইল অপারেটররা গ্রাহকে প্রমোশনাল এসএমএস দেওয়ার মাত্রাটা ছাড়িয়ে গেছে।

 

কোম্পানী গুলো প্রতিদিন নিয়ম করে তাদের গ্রাহকের মোবাইলে ৪/৫ টি এসএমএস পাঠিয়ে থাকে।যা সংশ্লিষ্ট গ্রাহকের জন্য চরম বিরক্তির কারন হয়ে দাড়ায়।অতি সম্প্রতি বিটিআরসির নির্দেশনায় বিষয়টির সুরাহা হতে চলেছে।এখন গ্রাহক চাইলেই একটি নাম্বার ডায়াল করার মাধ্যমে এইসব বিরক্তিকর এসএমএস আসা বন্ধ করে নিতে পারবে।
এজন্য একটি নির্দিষ্ট নম্বরে ডায়াল করতে হবে এবং কলের নির্দেশনা পূরন করে ডু নট ডিস্টার্ব ফিচারটি অন করতে হবে, তাহলেই পরক্ষনে সেই মোবাইলে এসএমএস আসা বন্ধ হয়ে যাবে।

 

কিভাবে প্রমোশনাল এসএমএস বন্ধ করতে হয়?

আপনার মোবাইল ফোনে আসা প্রমোশনাল এসএমএস বন্ধ করতে চাইলে আপনাকে ছোট একটা পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে।
যে নম্বরে এসএমএস আসা বন্ধ করতে চান সেই নাম্বার থেকে ডায়াল করুন *১২১*১১০১#,কিছুক্ষন পরেই ফিরতি এসএমএসে ডু নট ডিস্টার্ব ফিচারটি সফলভাবে চালু হওয়া নিশ্চিতকরন ম্যাসেজ পাবেন।পরবর্তী ৭২ ঘন্টার মধ্যে আপনার মোবাইলে যে কোন ধরনের প্রমোশনাল এসএমএস আর আসবে না।

 

আর কোন অযাচিত এসএসএম আপনার মোবাইলে আসবে না।ব্যস্ততার সময় আর কোন বিরক্তিকর এসএমএস আপনার মনোযোগ নষ্ট করতে পারবে না।
তবে আপনি যদি আবার মোবাইল কোম্পানীর প্রমোশনাল এসএমএস গুলো পেতে চান তাহলে আপনাকে একই রকম আরেকটা পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে।

 

এবার আপনি সেই নাম্বার থেকে ডায়াল করুন *১২১*১১০২# ফিরতি এসএমএসে ফিচারটি পুনরায় চালু হওয়া নিশ্চিতকরন ম্যাসেজ আসবে এবং ৭২ ঘন্টার মধ্য আবার আপনার মোবাইলে প্রমোশনাল এসএমএস গুলো আসতে শুরু করবে।

পরিশেষেঃ-

এটা সত্যি যে ,দিনে ৪/৫ টা এসএমএস যে কোন মানুষের জন্য বাড়তি বিরক্তির কারন হয়ে দাড়ায়।অপরদিকে,এই এসএমএস গুলোর মাধ্যমে মোবাইল অপারেটর কোম্পানী গুলো তাদের নানান অফার ও বাড়তি সুযোগ সুবিধার খবর গ্রাহকের কাছে পাঠায়।

 

একারনেই আপনি যদি প্রমোশনাল এসএমএস বন্ধ করে দেন তাহলে আপনার অপারেটরের দেওয়া বাড়তি সুযোগ সুবিধা এবং আকর্ষনীয় অফার গুলোর খবর আপনি জানতে পারবেন না।তবে বিরক্তির হাত থেকে বাঁচতে পারবেন।আরোও জানতে বিটিআরসির ওয়েবসাইট ভিজিট করে দেখুন।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *